লিটল ম্যাগাজিনের স্বপ্নসম্ভব – সন্দীপ দত্ত

বাংলা English

লিটল ম্যাগাজিনের স্বপ্নসম্ভব

   সন্দীপ দত্ত

স্বপ্ন আর কল্পনা dream আর imagination এর অর্থগত ফারাক খুব বেশি না থাকলেও স্বপ্নের মধ্যে আকাঙ্খার দূরবিস্তার আছে। মন স্বপ্নকে জড়িয়ে এগিয়ে যায়। স্বপ্ন আমার কাছে রিয়েলেটি। স্বপ্ন আমার কাছে পুঞ্জিভূত আশার দিশা। স্বপ্নদর্শী মানুষ সবাই হতে পারে না। স্বপ্ন দেখতে হয়। স্বপ্ন দেখা জানতে হয়। স্বপ্ন দেখার সঙ্গেই স্বপ্ন রূপায়নের অঙ্গীকার, যা ধীরে ধীরে পূর্ণতা পায়। বিমূর্ত থেকে বাস্তবতায় উত্তীর্ণ হওয়াতেই স্বপ্নযাত্রার স্বার্থকতা। স্বপ্ন না দেখলে কোনো কাজই রূপায়িত হয় না।স্বপ্ন চ্যালেঞ্জিং। স্বপ্ন হলো কর্মের পাসপোর্ট। মানুষই স্বপ্ন দেখে। শুধু চোখ – কান – হাত – পা থাকলেই স্বপ্ন দেখা যায় না।

    আমার সেই স্বপ্ন দেখাটা শুরু হয়েছিল একটা তাগিদ থেকে। তখন বয়সটাই বা কত? ২০-২১। একটা লিটল ম্যাগাজিন শুরু করেছিলাম ‘পত্রপুট’ নামে। লেখালেখি করি। পড়াশোনা চলছে। সেই সুবাদেই ন্যাশনাল লাইব্রেরিতে গিয়ে একদিন একটা ঘটনার সম্মুখীন হই। লাইব্রেরির বাংলা বিভাগের সামনে দড়ি বাঁধা বহু লিটল ম্যাগাজিন দেখে কৌতুহলী হই এবং কর্তৃপক্ষকে এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে জানতে পারি ওইসব পত্রপত্রিকা গুলি রাখা হয় না। ক্ষুব্ধ হই। অপমানিত হই। এতো আমার কাগজকে অপমান। এতো সমস্ত লিটল ম্যাগাজিনকে উপেক্ষা। ন্যাশনাল লাইব্রেরি ত্যাগ করি। পার্ট টু পরীক্ষা দিই। ঠিক করি এই প্রতিবাদে বাড়ির একতলায় লিটল ম্যাগাজিনের প্রদর্শনী করব। উপেক্ষা আর অবহেলার ভ্রুণে জন্ম নিল স্বপ্ন দেখা। ১৯৭২ সালের ২৩ থেকে ২৭ সেপ্টেম্বর নিজবাড়িতে ৭৫০ লিটল ম্যাগাজিনের একটি প্রদর্শনী সংগঠিত করি।অনেকেই প্রদর্শনীটি দেখেন।

   এখানেই কি থেমে যাব? স্বপ্ন দেখা চলতে থাকে।স্বপ্নের সরণী বেয়ে আসে ভাবনার নির্মিতি। আচ্ছা নিজেই যদি এই সংগৃহীত লিটল ম্যাগাজিনের একটি লাইব্রেরি করি, কেমন হয়! এই স্বপ্ন নির্মিতিই জন্ম নিল স্পর্ধার লাইব্রেরি ‘ বাংলা সাময়িক পত্র পাঠাগার ও গবেষণা কেন্দ্র’। ১৯৭৮ সালের ২৩ জুন প্রতিষ্ঠিত হলো এদেশের প্রথম লিটল ম্যাগাজিন লাইব্রেরি।

   কোনো অনুষ্ঠান করে শুরু হয়নি সে লাইব্রেরি। ছটা চেয়ার,  একটা গোল কষ্টিপাথরের টেবিল। টেবিল আর দেওয়াল ঘেঁষে টাঙানো দড়িতে পত্রপত্রিকার সমারোহ। হোয়াটস অ্যাপ, ফেসবুকের যুগ নয় সেটা। নিভৃতে,  নীরবে একটি কাজের স্বপ্নকে তিলতিল করে গড়ে তোলায় হাত দিল ২৭ বছর বয়সী এক যুবক। বইয়ের প্রতি প্রেম তার কৈশোর থেকেই। ছাত্র বয়স তখন তার। সদ্য এম. এ পাশ। লাইব্রেরির পত্র পত্রিকা,  বইপত্তর ব্যাক কিনতে টাকার দরকার।  কাজে যখন নেমে পড়েছি পিছোনো যাবে না। ১৯৭৭ এ মেদিনীপুরে খড়গহর লাইনে রাধামোহনপুরের একটি স্কুলে উচ্চমাধ্যমিক পড়ানোর  পার্টটাইম চাকরি। ১০০ টাকা। রাতে একটি সংবাদ পত্রের অফিসে ট্রেনি – ৫০ টাকা। একটি লক্ষী ভাঁড় রাখলাম লাইব্রেরি টেবিলে।  সাধ করে নাম রাখলাম থ্রি পেনি অপেরা। সিগ্রেট খাওয়া ছাড়লাম।খাদ্যগুণ নেই,  বরং ওই পয়সায় লিটল ম্যাগাজিন কেনা যাবে।

     ছেঁড়া কাঁথায় লাখ টাকার স্বপ্ন আমি দেখিনি। স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করেছি কাজের মধ্যে দিয়ে, আকাঙ্ক্ষা ও তীব্রবোধের মধ্য দিয়ে। পরিশ্রম আর ধৈর্যের মধ্যে দিয়ে।  বিবলিওগ্রাফি কাজের মধ্য দিয়ে লাইব্রেরির পথ তৈরি করেছি। ঠিকানাকে মানুষের কাছে পৌঁছে দিয়েছি। ১৯৯৩ সালে যখন All India Little Magazine Conference করেছিলাম তখন সবাই ছোট করে করার কথা বলেছিল। বলেছিলাম স্বপ্নটা বড় দেখতে হবে। চেষ্টা করব। করেছিলাম।

   আজ লিটল ম্যাগাজিন লাইব্রেরি ৪৪ বছর ধরে স্বপ্নসম্ভব এর বার্তা দিয়েছে। দেশ বিদেশ জুড়ে সারস্বতচর্চায় নিবেদিত এই পীঠ শুধু স্বপ্ন দর্শনের ভিত্তিতে রচিত নয়। স্বপ্ন দেখা আর তার রূপায়নই কাজ করেছে এই কাজ করতে। ধৈর্য,  বিশ্বাস, ধারাবাহিকতা যে কোনো কাজের অঙ্গ। স্বপ্ন সেই কাজের সহায়ক মন্ত্র। স্বপ্ন অলীক কল্পনা নয়।স্বপ্নের মধ্যেই থাকে কর্মবীজের মন্ত্রণা। স্বপ্ন তো দেখতেই হয়। আন্তর্জাতিক লিটল ম্যাগাজিন গবেষণা কেন্দ্রর স্বপ্ন দেখি। সবাই তো দুঃস্বপ্নের কথা বলে। কই সুস্বপ্নের কথা তো কেউ বলে না।

 Be Positive. স্বপ্ন দেখতেই হয়।

  সন্দীপ দত্ত
সন্দীপ দত্ত লিটল ম্যাগাজ়িন সংগ্রাহক, সংরক্ষক, লেখক, সম্পাদক। কলকাতার লিটল ম্যাগাজ়িন লাইব্রেরি ও গবেষণা কেন্দ্রে'র প্রতিষ্ঠাতা ও প্রাণপুরুষ। তাঁর রচিত বহু গ্রন্থের মধ্যে বিশেষভাবে উল্লেখ করতে হয় - 'লিটল ম্যাগাজ়িন ভাবনা', 'প্রসঙ্গ লিটল ম্যাগাজ়িন', 'লিটল ম্যাগাজ়িনে দেশভাগ', 'লিটল ম্যাগাজ়িন স্বতন্ত্র অভিযাত্রা', 'বাংলা সাময়িক পত্রের ইতিবৃত্ত (১৯১০-১৯৫০), 'বাংলা গল্প কবিতা আন্দোলনের তিন দশক' ইত্যাদি। সম্পাদিত পত্রিকার মধ্যে উল্লেখযোগ্য - 'পত্রপুট', 'হার্দ্য', 'উজ্জ্বল উদ্ধার', 'Little Magazine News and Views' ইত্যাদি। 

© All rights reserved by Torkito Tarjoni

One comment

  • শুভেন্দু নাথ চন্দ্র

    খুবই অনুপ্রেরণা মূলক
    ব্যতিক্রমী পথে স্বপ্ন দেখে তাকে বাস্তব রূপ দেওয়া এবং এককভাবে এতদূর নিয়ে আসা… সেটাও যেন আর একটা স্বপ্ন !

    বাঙালির একটা গর্ব করার বিষয়
    লিটল ম্যাগাজিন লাইব্রেরির উত্তরোত্তর শ্রীবৃদ্ধি কামনা করি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *